Home / সাম্প্রতিক বিষয় / শিক্ষক নিয়োগের দুই ধাপের পরীক্ষা বাতিল করতে হবে – ভিপি নূর

শিক্ষক নিয়োগের দুই ধাপের পরীক্ষা বাতিল করতে হবে – ভিপি নূর

শিক্ষক নিয়োগের দুই ধাপের পরীক্ষা বাতিল করতে হবে – ভিপি নূর

 

প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগের দুই ধাপের পরীক্ষা বাতিলঃ রবিবার দুপুর ১২টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে দুই ধাপের প্রাথমিকে নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল ও পুনরায় পরীক্ষার দাবিতে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন। ডাকসুর ভিপি নুরুলহক নুর বলেন প্রশ্নফাঁস নিয়ে এটাই আমাদের প্রথম কিংবা নতুন আন্দোলন নয়, আমাদের আগেও অনেক ছাত্রসংগঠন এসবের প্রতিবাদ করেছে। এসময় তিনি শুরু থেকে প্রশ্নফাঁসের বিরুদ্ধে সরকারের যথাযথ ব্যবস্থা না নেওয়াকে দুর্বল শাসন ব্যবস্থা এবং সুশাসনের অভাব বলে ‍উল্লেখ্য করেন।

 

বর্তমান সরকারের তিন মেয়াদেও প্রশ্নফাঁস বন্ধ করতে ব্যর্থ হয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ভিপি নুরুলহক নুর। এসময় তিনি সরকারের তিন মেয়াদেও প্রশ্নফাঁসকে নিয়ন্ত্রণ করতে না পারাকে দুর্বল শাসন ব্যবস্থা এবং সুশাসনের অভাব বলে মন্তব্য করেছেন।

 

এরআগে প্রশ্নফাঁস বিরোধী আন্দোলনে তাদের উপর হামলার বিষয় তুলে ধরে নুর বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো প্রতিষ্ঠানের প্রশ্নফাঁস নিয়ে আন্দোলন করতে গিয়ে আমরা সরকারি ছাত্রসংগঠনের হামলার শিকার হয়েছি। যেই প্রশ্নফাসঁ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছে এবং বিতর্কিত পরীক্ষা বাতিল করে পুনরায় নতুন পরীক্ষা দিয়েছে। এসময় তিনি সরকারি সকল নিয়োগে পিয়ন থেকে ফাস্ট ক্লাস পর্যন্ত টাকার বিনিময়ে ক্ষমতসীনদের লোকদের কাছে জিম্মি বলেও মন্তব্য করেন।

 

নুরুলহক তার বক্তব্যে সরকারি সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীল প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্তৃপক্ষের প্রতি অতিদ্রুত প্রশ্নফাঁস নিরসনে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের আহবান জানান। মানববন্ধনের বিষয়ে সংগঠনটির যুগ্ম আহবায়ক মো. রাশেদ খান জানান, আজকে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ এখানে একত্রিত হয়েছে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় যারা অংশ নিয়েছিল তাদের অুনরোধে। রাশেদ বলেন যেখান থেকে, যাদের কাছ থেকে আমাদের ছোট শিশুরা নীতি-নৈতিকতা শিখবে সেখানেই প্রশ্নফাঁসের মাধ্যমে যোগ্য মেধাবীদের বঞ্চিত করে অযোগ্যদের নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। বাংলাদেশের প্রতিটা সরকারি চাকরি কিংবা নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁস, অনিয়মের কথা তুলে ধরে এসবের সুষ্ঠু প্রতিকার চেয়েছেন রাশেদ।

 

সংগঠনটির যুগ্ম আহবায়ক ফারুক হাসান বলেন, বাংলাদেশের প্রতিটি রন্ধ্রে রন্ধ্রে অনিয়ম, অন্যায় আর দুর্নীতিতে ভরে গেছে। যার কারণে মানুষ এসব অন্যায় অনিয়মের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পায় না। তিনি বলেন, এজন্য এদেশে কৃষকের ধানের ন্যায্য মূল্য, প্রশ্নফাঁস কিংবা ঘুষ-দুর্নীতির মতো অসংগতির বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন করতে হয়। এছাড়া মানববন্ধনে সংগঠনটির যুগ্ম আহবায়ক মো. আতাউল্লাহ, মশিউর রহমান এবং এপিএম সোহেলসহ বেশ কয়েকজন নেতা-কর্মী বক্তব্য রাখেন।

 

এসময় মানববন্ধন থেকে ৩টি দাবি তুলে ধরা হয় প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগের দুই ধাপের পরীক্ষা বাতিল করা। প্রশ্নফাঁস ও জালিয়াতির সাথে জড়িতদের বিচারের আওতায় আনা। প্রশ্নফাঁসে জড়িতদের সরকারি চাকরিতে অযোগ্য ঘোষনা করা। মানববন্ধনের সমাপনী বক্তব্যে সংগঠনটির আহ্বায়ক হাসান আল মামুন বলেন, সকল পাবলিক পরীক্ষা পিএসসির অধীনে নিয়ে আসতে হবে। যাতে করে প্রশ্নফাঁস নিরসনে কার্যকর ভুমিকা নেওয়া সম্ভব হয়।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন